আওয়ামী লীগ কী সত্যি দেশ চালাচ্ছে: ফখরুল

0
21

আওয়ামী লীগ সরকার দেশ পরিচালনা করছে কি-না তা নিয়ে সন্দেহ পোষণ করছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ সংশয়ের কথা জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমার মাঝে-মধ্যে সন্দেহ হয়, আওয়ামী লীগ কী সত্যি দেশ চালাচ্ছে? একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ কী দেশ চালাচ্ছে? না হয় কে চালাচ্ছে?’

সন্দেহের কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘আমার তো মনে হয় কোনো রাজনৈতিক দল দেশ চালাচ্ছে না। অন্য কেউ দেশ চালাচ্ছে। এটাই আমাদের কাছে সন্দেহ হয়। একটা গণতান্ত্রিক দল কখনোই এভাবে নিজের হাতে তৈরি করা তার সন্তান, যার জন্য সে লড়াই করেছে, যুদ্ধ করেছে, তারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে জবাই করেছে, গণতন্ত্রকে আরেকবার জবাই করেছে।’

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়েও সরকার অন্যায় আচরণ করছে। সরকারের আচরণে এটা পরিস্কার যে, তারা খালেদা জিয়াকে সঠিক চিকিৎসাও করাতে দিতে চায় না। কারণ একটাই- সরকার তাকে ভয় পায়। একমাত্র খালেদা জিয়া গণতন্ত্র রক্ষা করতে পারেন, এই স্বৈরতন্ত্রকে পরাজিত করতে পারেন, জনগণকে একটা কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে পারেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ২০ দলীয় জোটের ঐক্য অটুট রয়েছে। ২০ দলীয় জোট তাদের অবস্থানে সঠিক আছে এবং কোনো বিভেদ নেই। তারা সঠিকভাবে কাজ করছে, সব সময় তারা জোটের ঘোষিত কর্মসূচি আন্তরিকভাবেই পালন করছে।

জোটের বাইরে দলগুলোর সঙ্গে ঐক্যের বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, রাজনীতিতে সময় বলে একটা ব্যাপার আছে। কথা বলছি, কথা চলছে। তিনি বলেন, দেশের স্বার্থে, গণতন্ত্রের স্বার্থেই সবাইকে একটা জায়গায় আসতে হবে বলে বিশ্বাস করি।

সদ্য কারামুক্ত স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, সরকারের আচরণে মনে হচ্ছে যে খালেদা জিয়াকে তাড়াতাড়ি বের হতে দেবে না। এখানে আদালতের কিছু করার নেই। আদালত তাদের পুরো নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। তা না হলে রায়ের ৭ দিনের মধ্যে তিনি মুক্তি পেতেন।

সরকার রাজনৈতিক বিবেচনায় তাকে জেলে রেখেছে। সুতরাং, রাজনৈতিক পন্থায় তাকে মুক্ত হতে হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড সীমিত রাখব না আর। সময় এসেছে সরকারের পতন ঘটানোর। সরকারের পতন হলেই খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন, জনগণ মুক্তি পাবে।

সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সদ্য কারামুক্ত আমানউল্লাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সুত্রঃ সমকাল।

Leave a Reply