আর্মি স্টেডিয়ামে আনা হয়েছে মরদেহ, স্বজনদের আহাজারি

0
19

নেপালে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত ২৬ বাংলাদেশীর মধ্যে শনাক্তকৃত ২৩ জনের মরদেহ ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে আনা হয়েছে। সেখানে নিহতদের স্বজনরা স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে ভিড় জমিয়েছেন। আর কিছুক্ষণের মধ্যেই নামাজের জানাজা শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

সোমবার দুপুর আড়াইটার দিকে মরদেহগুলো নিয়ে বিমান বাহিনীর বিশেষ ফ্লাইট দেশের উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

পাঁচটার পরে মরদেহগুলো একে আর্মি স্টেডিয়ামে এনে নামানো হয়। কিছুক্ষণ আগেই স্টেডিয়ামে আছরের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর কিছুক্ষণ পর নিহতদের দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। নামাজে জানাজায় উপস্থিত হয়েছেন রাজনৈতিক নেতা, তিনবাহিনীর প্রধানসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ।

এরপর স্বজনদের কাছে তাদের মরদেহ হস্তান্তর করা হবে।

নিহতদের মধ্যে ২৩ জনের মরদেহ শনাক্ত করার পর নেপালি কর্তৃপক্ষ কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃপক্ষের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করে। তাদের কফিন সোমবার সকালে নিয়ে যাওয়া হয় দূতাবাস প্রাঙ্গণে। সেখানে স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ৪০ মিনিটে এই ২৩ জনের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। নিহতদের স্বজন, নেপালে বসবাসরত বাংলাদেশী, সাংবাদিক, বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং ইউএস-বাংলার উপস্থিত কর্মকর্তারা জানাজায় অংশ নেন। পরে মরদেহ দেশে আনার জন্য পাঠানো হয় ত্রিভুবন বিমানবন্দরে।

আজ যেসব যাত্রীদের মরদেহ আনা হয়েছে তারা হলেন— মো. ফয়সাল আহমেদ, হুরুন নাহার বিলকিস বানু, নাজিয়া আফরিন চৌধুরী, সানজিদা হক, আঁখি মনি, এফএইচ প্রিয়ক, উম্মে সালমা, মো. নুরুজ্জামান, মো. রফিকুজ্জামান, অনিরুদ্ধ জামান, তাহিরা তানভিন শশী, মিনহাজ বিন নাসির, মো. রকিবুল হাসান, মো. মতিউর রহমান, মোসাম্মৎ আখতারা বেগম, মো. হাসান ইমাম, তামারা প্রিয়ন্ময়ী, এসএম মাহমুদুর রহমান ও বিলকিস আরা।

সেই সঙ্গে দেশে আনা হয়েছে চারজন পাইলট ও ক্রু’র মরদেহও। তারা হলেন- উড়োজাহাজের পাইলট আবিদ সুলতান, কো-পাইলট পৃথুলা রশীদ, ক্রু খাজা সাইফুল্লাহ ও শারমিন আক্তার নাবিলা।

Leave a Reply