ইউটিউব প্রধান কার্যালয়ে গুলিতে আহত ৩

0
19

যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ায় অবস্থিত ইউটিউবের প্রধান কার্যালয়ে এক হামলার ঘটনায় তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। সন্দেহভাজন হামলাকারী নারীকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়া পুলিশপ্রধান বারবার্নি সাংবাদিকদের কাছে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তাৎক্ষণিকভাবে হামলাকারীর পরিচয় বা হামলার কারণ জানা যায়নি।

স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার এই হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় আহত দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জাকারবার্গ সানফ্রান্সিসকো জেনারেল হাসপাতালের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন। তবে একজন আশঙ্কামুক্ত থাকার কথা তিনি নিশ্চিত করেন।

Armed law enforcement personnel exit YouTube headquarters, Tuesday, April 3, 2018, in San Bruno, Calif. A woman opened fire at YouTube headquarters Tuesday, setting off a panic among employees and wounding several people before fatally shooting herself, police and witnesses said. (AP Photo/Marcio Jose Sanchez)

পুলিশ বলেছে, গুলিবিদ্ধ ৩৬ বছর বয়সী এক ব্যক্তির অবস্থা গুরুতর। তাঁকে সন্দেহভাজন ওই নারীর বন্ধু বলে ধারণা করা হচ্ছে। আহত অন্য দুজন নারীর বয়স ৩২ ও ২৭ বছর।

বারবার্নি বলেন, স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা ৪৮ মিনিটে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। সেখানে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। মানুষ দিগ্‌বিদিক ছুটছিল।

কার্যালয়ের সামনে গুলিবিদ্ধ এক ব্যক্তিকে পড়ে থাকতে দেখা যায়। কয়েক মিনিট পরই গুলিবিদ্ধ আরেক নারীকে পাওয়া যায়। সন্দেহভাজন ওই নারী আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পরে আরও দুজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। সন্দেহভাজন ওই নারী হ্যান্ডগান ব্যবহার করেছেন।

ইউটিউবের ওই কার্যালয়ে ১ হাজার ৭০০ জন কর্মী কাজ করেন। গুগলের মালিকানায় থাকা ইউটিউব ওই অঞ্চলের সবচেয়ে বড় নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান।

স্থানীয় টেলিভিশনগুলোয় প্রচার হওয়া ছবিতে দেখা যায়, কর্মীরা ওপরে দুহাত তুলে কার্যালয় ছেড়ে যাচ্ছেন। অন্য আরেক ফুটেজে দেখা গেছে, কার্যালয় খালি করার আগে কর্মীদের সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে তল্লাশি করা হচ্ছে।

হেলিকপ্টারে ধারণ করা ভিডিওচিত্রে দেখা যায়, ওই কার্যালয়ের একটি কাচের দরজা ভেঙে গেছে। কাচ ছড়িয়ে আছে।

এ ঘটনায় দ্রুত পুলিশি ততপরতার প্রশংসা করেছেন ইউটিউবের মুখপাত্র ক্রিস ডেল। তিনি বলেন, ‘আমরা আজ পুরো ইউটিউব কমিউনিটি এ অপরাধের শিকার হয়েছিলাম বলে মনে হচ্ছে। এ নির্দিষ্ট আক্রমণের ঘটনায় যাঁরা আহত হয়েছেন, তাঁদের সমবেদনা জানাচ্ছি।’

ইউটিউবের অনেক কর্মী টুইটারে ঘটনা জানাতে থাকেন। পণ্য ব্যবস্থাপক টড শেরম্যান বলেন, গুলির ঘটনা ঘটার পর মানুষ ভয়ে ভবনের মধ্যে ঢুকে পড়ে।

তাঁর টুইটে শেরম্যান লিখেছেন, ‘আমরা মিটিংয়ে বসেছিলাম। মানুষ দ্রুত ছুটছিল। এ সময় মেঝে কাঁপছিল। মনে হচ্ছিল ভূমিকম্প।’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঘটনা শুনেছেন বলে জানান। এক টুইটে তিনি বলেছেন, ‘ক্যালিফোর্নিয়ায় ইউটিউবের সদর দপ্তরে গুলির ঘটনা অবহিত হয়েছি। এ ঘটনার ভুক্তভোগী সবার জন্য প্রার্থনা করি। ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে সাড়া দেওয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের ধন্যবাদ।’ সুত্রঃ প্রথম আলো।

Leave a Reply