ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকে আন্দোলনকারীরা

0
3
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক করতে সোমবার বিকেলে সচিবালয়ে যায় আন্দোলন শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধিদল— আন্দোলনকারীদের ফেসবুক গ্রুপ থেকে নেওয়া ছবি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভাপক্ষে এ বৈঠক শুরু হয়।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনের নেতৃত্বে আন্দোলনকারীদের ২০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল বৈঠকে অংশ নিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা ওয়ালিদ ফয়েজ।

কোটা সংস্কার নিয়ে চলমান আন্দোলন থমথমে থাকার পর সোমবার দুপুরের দিকে ফের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন এলাকায় জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

সোমবার বেলা ১২টার দিকে আন্দোলনকারী ক্যাম্পাস থেকে শাহবাগের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয় এবং টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। পরে আন্দোলনকারীরা ক্যাম্পাসের ভেতরে মিছিল করেন। এছাড়া রাজু ভাস্কর্যের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করছেন আন্দোলনকারীরা।

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

এছাড়া দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে টিএসসিতে জড়ো হতে শুরু করেন আন্দোলনকারীরা। দুপুর পৌনে ২টার দিকে টিএসসির সামনে থেকে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। পুলিশের টিয়ার শেলের জবাবে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল মারতে শুরু করে।

এদিকে কোটা সংস্কার নিয়ে চলমান আন্দোলনে আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তি না দিলে সারা দেশে দাবানল ছড়িয়ে পড়বে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন আন্দোলনকারী সংগঠনের নেতারা।

‘বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই’ স্লোগানে রোববার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদযাত্রা করে শাহবাগে অবস্থান নেন সরকারি চাকরিতে কোটার সংস্কার দাবিতে আন্দোলনকারীরা। দেশের সব জেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের’ ব্যানারে পূর্বঘোষিত এ পদযাত্রা কর্মসূচি পালিত হয়।

রোববার রাত ৯টার দিকে শিক্ষার্থীরা সংঘবদ্ধ হয়ে টিএসসি ও চারুকলার সামনে অবস্থান নিলে পুলিশের সঙ্গে কয়েক দফায় তাদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে আহত অন্তত ৩৫ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এছাড়া ১১ পুলিশসহ আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী বিএসএমএমইউ এবং বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়। এক পর্যায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলা ও ভাংচুর এবং বাসভবনের বাইরে একটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনাও ঘটে। সুত্রঃ সমকাল।

Leave a Reply