ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলবেন না মাশরাফি!

0
21
ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে অধিনায়ককে পাচ্ছে না ওয়ানডে দল।

নির্বাচন করার জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। নির্বাচনে যদি সত্যি সত্যি মনোনয়ন পেয়ে যান তাহলে তিনি কীভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে খেলবেন? সে সময় তো পুরো প্রচারাভিযানে ব্যস্ত থাকতে হবে তাঁকে। এ নিয়ে কী ভাবছেন বিসিবি সভাপতি?

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুর টেস্ট জয় মাঠে থেকেই দেখলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। সিরিজের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান শেষে মুখোমুখি হলেন সংবাদমাধ্যমের। সেখানে অবধারিতভাবে এল মাশরাফি বিন মুর্তজার নির্বাচন-প্রসঙ্গ। বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক এরই মধ্যে নড়াইল-২ আসন থেকে নির্বাচন করার জন্য সরকারি দল আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। আগামী ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে ভোট গ্রহণের তারিখ। চূড়ান্ত মনোনয়ন পেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের সময়ই তিনি প্রচারাভিযানে ব্যস্ত থাকবেন। তিনি কীভাবে খেলবেন এই সিরিজ? ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে বাংলাদেশের তিনটি ওয়ানডে ৯, ১১ ও ১৪ ডিসেম্বর।

বিসিবি সভাপতি প্রশ্নটা শুনে শুরুতে মুচকি হাসলেন। বললেন, ‘কঠিন প্রশ্ন। ওর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার একটা তারিখ আছে। কবে পূরণ করবে, ওখানে ওর কর্মসূচি কী, ঠিক জানি না। আজ ওর সঙ্গে দেখা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তখন বিস্তারিত কথা হবে। যদি সুযোগ থাকে সে অবশ্যই খেলবে। একদিনের জন্যও যদি সময় থাকে সে অবশ্যই খেলবে। খেলাটা ওর কাছে সব সময়ই প্রাধান্য পাবে।’

এখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বিদায় নেননি। তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশের খেলার কথা আগামী বিশ্বকাপ। অধিনায়ক মাশরাফির রাজনীতিতে আসাটা কীভাবে দেখছেন বিসিবি সভাপতি? নাজমুল মনে করেন, খেলা চালিয়ে যেতে মাশরাফির কোনো সমস্যা হবে না, রাজনীতিতে আসার সিদ্ধান্তটা ঠিকই নিয়েছেন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক, ‘সমস্যা হবে বলে আমি মনে করি না। সাকিবও করতে চেয়েছিল, কিন্তু সে পিছিয়ে এসেছে এসব কথা চিন্তা করে ,যেহেতু সে আরও চার-পাঁচ বছর খেলবে। সাকিবকে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ঠিক আছে তুমি খেলো। মাশরাফির ব্যাপারটা ভিন্ন। ও কত দিন খেলবে ঠিক নিশ্চিত না। ওর যে শারীরিক অবস্থা , এখনো যে খেলছে এটাই তো অনেক। সে খেলোয়াড় হিসেবে খেলে না, আমাদের দলে অধিনায়ক হিসেবে খেলে। ওর অধিনায়কত্ব আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। ওর মতো অধিনায়ক খুঁজে পাচ্ছি না, পাব বলেও মনে হয় না। সেদিক দিয়ে চিন্তা করলে বড়জোর বিশ্বকাপের পর হয়তো অবসরে যাবে। সেটি যদি হয় মাত্র কয়েক মাসের ব্যাপার। এটা হলে এর চেয়ে ভালো প্রস্থান আর কিছু হতে পারে না। কয়েক মাস পর অবসর নিলে সে এই সাড়ে চার বছর আর করবেটা কী? আরেকটি ক্ষেত্রে সে থাকল, যেখান সে ক্রীড়াক্ষেত্রে জোরালো অবস্থান রাখতে পারবে বলেই আমার বিশ্বাস।’

// সুত্রঃ প্রথম আলো//

Leave a Reply