ফের ব্যর্থ টপ অর্ডার চাপে বাংলাদেশ!

0
11

ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যর্থ বাংলাদেশের দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস ও লিটন দাশ। বুধবার সকালে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ১০ রানেই সাজঘরে ফেরেন লিটন ও ইমরুল। তাদের দেখাদেখি আউট হয়ে গিয়েছেন প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরিয়ার মুমিনুল হকও।

ইমরুল ফিরে যাওয়ার এক বল পরেই বিদায় নেন লিটনও। কাইল জার্ভিসের বলে বোল্ড হন লিটন। ইমরুল ১২ বলে ৩ ও লিটন ১৪ বলে ৬ রান করেন।

দুই ওপেনারের বিদায়ের পর ডোনাল্ড তিরিপানোর বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে বসেন মুমিনুল। ৫ বলে ১ রান করেন তিনি।

সকালের এমন বিপর্যয় এখন সামলাচ্ছেন প্রথম ইনিংসে রেকর্ডগড়া ডাবল সেঞ্চুরিয়ান মুশফিকুর রহিম। তাকে সঙ্গ দিচ্ছেন অভিষিক্ত মোহাম্মদ মিঠুন। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২০ রান।

মাহমুদুল্লাহদের সামনে সুযোগ ছিল জিম্বাবুয়েকে ফলোঅন করানোর। কিন্তু জিম্বাবুয়েকে ফলোঅন না করিয়ে প্রথম ইনিংসে ২১৮ রানের বড় লিড পাওয়া বাংলাদেশ বুধবার সকালে ব্যাটিংয়ে নামে।

এর আগে জিম্বাবুয়ে তৃতীয় দিন শেষে ৯ উইকেটে ৩০৪ রান তোলে। তাদের শেষ ব্যাটসম্যান চাতারা ইনজুরির কারণে নামতে না পারায় ওই রানে থামে তাদের ইনিংস। বাংলাদেশ তাদের প্রথম ইনিংসে করে ৭ উইকেটে ৫২২ রান। ফলোঅন এড়াতে হলে জিম্বাবুয়েকে করতে হতো ৩২২ রান। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ ২১৮ রানে এগিয়ে ছিল।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ২৫ রানে ১ উইকেট হারানো জিম্বাবুয়ে তৃতীয় দিন শুরু করে। দিনের শুরুতে তাদের দ্রুত উইকেট তুলে নেয় বাংলাদেশ স্পিনাররা। ১৩১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বসে জিম্বাবুয়ে। কিন্তু ষষ্ঠ উইকেটে টেইলর এবং মুর ১৩৯ রানের জুটি গড়েন। পিটার মুর ৮৩ রানে ফিরে যান। তবে টেইলর সেঞ্চুরি করে ১১০ রান করে ফেরেন।

বাংলাদেশের হয়ে জিম্বাবুয়ের প্রথম ইনিংসে ১০৭ রানে ৫ উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম। টেস্টে এটি তার পরপর তিন ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়ার কীর্তি। এর আগে অবশ্য আরও দু’জন বাংলাদেশি বোলারের এই কীর্তি আছে। সাকিব আল হাসান এবং এনামুল হক জুনিয়র টানা তিন ইনিংসে ৫ উইকেট নেন। বাংলাদেশের হয়ে মেহেদি মিরাজ নেন ৩ উইকেট। এছাড়া মুরকে ফিরিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম উইকেট পান আরিফুল হক।

প্রথম ইনিংসে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ৫২২ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। দলের হয়ে মুশফিক ডাবল সেঞ্চুরি করেন। তিনি ২১৯ রানের ক্যারিয়ার সেরা এবং বাংলাদেশের টেস্টে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলেন। মুমিনুল খেলেন ১৬১ রানের ইনিংস। এছাড়া মেহেদি মিরাজ পান ফিফটি।
// সুত্রঃ সমকাল//

Leave a Reply