রুপালি গিটার ফেলে সঙ্গীত জাদুকর আইয়ুব বাচ্চু চলে গেলেন না ফেরার দেশে!

0
64
জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু।

ঢাকাঃ
“এই রুপালি গিটার ফেলে
একদিন চলে যাব দুরে, বহুদূরে
সেদিন অশ্রু তুমি রেখো
গোপন করে।

মনে রেখো তুমি
কত রাত কত দিন
শুনিয়েছি গান আমি, ক্লান্তিবিহীন
অধরে তোমার ফোঁটাতে হাসি
চলে গেছি শুধু
সুর থেকে কত সুরে।”

____ আইয়ুব বাচ্চু

রূপালি গিটার ফেলে চিরতরে চলে গেলেন ব্যান্ডসংগীতের কিংবদন্তি আইয়ুব বাচ্চু। আর কখনও গিটার বাজাবেন না গুণী এই শিল্পী। বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) সকালে মৃত্যুবরণ করেছেন তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর।

আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর খবরে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। সংগীতাঙ্গনের অনেকে এখন হাসপাতালে ভিড় করছেন। কণ্ঠশিল্পী সামিনা চৌধুরী, দলছুট ব্যান্ডের বাপ্পা মজুমদার, উপস্থাপক হানিফ সংকেত, অভিনেতা শংকর সাঁওজাল, আর্টসেল ব্যান্ডের লিংকনকে দেখা গেছে।

পারিবারিক সূত্র জানায়, বুধবার (১৭ অক্টোবর) রাতে এলআরবি ব্যান্ড নিয়ে রংপুরে সংগীত পরিবেশন করেছেন আইয়ুব বাচ্চু। বৃহস্পতিবার সকালে তারা ঢাকায় ফেরেন। কিন্তু আইয়ুব বাচ্চু অস্বস্তি বোধ করছিলেন। সকাল ৮টার দিকে বাসায় ব্রেইন স্ট্রোক করেন তিনি। তড়িঘড়ি তাকে স্কয়ার হাসপাতালে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু আনুমানিক সকাল ৯টায় কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু।

দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যান্ড এলআরবির দলনেতা আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন একাধারে গায়ক, গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক। সঙ্গীতজগতে ১৯৭৮ সালে তার যাত্রা শুরু হয় ফিলিংস ব্যান্ডের মাধ্যমে। ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত সোলস ব্যান্ডে লিড গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত ছিলেন তিনি। গুণী এই শিল্পী তার ভক্তদের কাছে ‘এবি’ নামেও পরিচিত। রক ঘরানার গানের এই শিল্পী আধুনিক আর লোকগীতিতেও শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন তিনি।

১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আইয়ুব বাচ্চু। ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত ‘রক্তগোলাপ’ হলো তার প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম। তার সাফল্যের শুরুটা হয় দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘ময়না’র (১৯৮৮) মাধ্যমে।
// সুত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন/ প্রথম আলো/ সমকাল//

Leave a Reply