‘হিচকি’ ও ‘শাহরুখ’

0
9

শাহরুখ খান আর রানী মুখার্জির বন্ধুত্বের কথা কারও অজানা নয়। তাঁদের খুনসুটির সম্পর্ক পর্দায়ও দারুণ সফল। এই জুটি একাধিক হিট ছবি দিয়েছে বলিউডকে। সম্প্রতি শাহরুখের ‘জিরো’ ছবির সেটে রানী এবং কাজল গিয়ে খুব মজা করেন। এই ত্রয়ী ফিরে যান ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ ছবির মজার সেই দিনগুলোতে। ১৯ বছর পর তাঁদের একসঙ্গে আবার পর্দায় দেখা যাবে। শাহরুখের ‘জিরো’ ছবিতে রানী আর কাজলকে দেখা যাবে কেমিও হিসেবে। এবার শাহরুখের পালা। রানীর ছবিতে সশরীরে না থাকলেও তাঁর পাশে দাঁড়ালেন বন্ধু শাহরুখ খান। ২৩ মার্চ মুক্তি পাচ্ছে রানী অভিনীত ছবি ‘হিচকি’। শাহরুখ এগিয়ে এলেন ‘হিচকি’ প্রচারণায়। বললেন নিজের জীবনের ‘হিচকি’ নিয়ে।

‘হিচকি’র নির্মাতারা ছবি প্রচারণার জন্য এক অভিনব পদ্ধতি নিয়েছেন। বলিউডের সেরা ব্যক্তিত্বদের কাছে জানতে চাচ্ছেন তাঁদের জীবনের এমন কিছু অব্যক্ত দুর্বলতা, যা পরে আবার তাঁদের অনুপ্রেরণা এবং শক্তি হয়েছে।

শাহরুখ খানের জীবনে এসেছিল অনেক দুর্বল সময়। জীবন ঠিকমতো শুরু হওয়ার আগেই তিনি বাবা-মাকে হারান। শাহরুখ নিজের মুখে ব্যক্ত করেছেন সেই কথা, প্রিয়জনদের হারানোর সেই যন্ত্রণার কথা। সেই যন্ত্রণা জন্ম দিয়েছে অভিনেতা শাহরুখকে। অভিনয়কে হাতিয়ার করে আজ তিনি জয় করেছেন তাঁর কষ্ট-বেদনাকে।

শাহরুখ খান বলেন, ‘আমার জীবনের সবচেয়ে ‘হিচকি’ (দুর্বল) মুহূর্ত ছিল আমার অভিভাবকদের হারানো। আমার বয়স তখন ১৫। বাবা আমাদের ছেড়ে চিরতরে চলে যান। ২৬ বছর বয়সে মাকে হারাই। আমাদের আর্থিক অবস্থা একদম ভালো ছিল না। ওই সময় আমি মাস্টারি করেছিলাম। বাবা-মাকে ছাড়া খালি বাড়িটা যেন আমাকে গিলতে আসত। যদিও আমার সঙ্গে আমার বোন থাকতেন। কিন্তু একাকিত্ব আমাকে ঘিরে ধরে। নিদারুণ যন্ত্রণা আর বেদনা আমাকে গ্রাস করতে থাকে। ভাবি, এই হিচকি থেকে আমাকে বার হতে হবে। আর একমাত্র অভিনয় পারে আমাকে এই কঠিন পরিস্থিতি থেকে বের করতে।’

শাহরুখ আরও বলেন, ‘হাজারো যন্ত্রণার মাঝে আমি কখনো হাল ছাড়িনি। নিজের ক্যারিয়ারের দিকে পুরোপুরি মন দিই। যাঁরা আমার কাছের মানুষ, তাঁরা জানেন অভিনয় আমার শিরা-উপশিরায়। জীবনে আমার জমে থাকা আবেগকে প্রকাশ করার উন্মুক্ত জানালা হলো অভিনয়। আমি সব সময় বলে থাকি, একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে আমি অনুভব করব, জীবনের সব আবেগকে আমি অভিনয়ের মাধ্যমে প্রকাশ করে ফেলেছি। একজন অভিনেতা হিসেবে আমার আর কিছু দেওয়ার নেই। তবে জীবনের সব যুদ্ধ জয় করা যায়। কিন্তু মৃত্যুর কাছে সবাই অসহায়। মৃত্যু থেকে ফেরার কোনো রাস্তা নেই। তবে এই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি থেকে আমি আমার পরিবার, বন্ধু সব পেয়েছি।’

সিদ্ধার্থ পি মালহোত্রা পরিচালিত ‘হিচকি’ ছবিতে রানী মুখার্জিকে নয়না মাথুরের চরিত্রে দেখা যাবে। এক বিশেষ স্নায়ু রোগের ওপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছে এই ছবির গল্প। সুত্রঃ প্রথম আলো।

Leave a Reply